“আগের চাকরি ছেড়ে দিচ্ছেন কেনো?” – প্রশ্নটির উত্তর দেবেন যেভাবে

December 5, 2021 |
Views: 413

আপনার চাকরির ইন্টারভিউটা বেশ ভালোই যাচ্ছে। এখন পর্যন্ত যা প্রশ্ন করা হয়েছে প্রায় সবই ঠিকঠাক মতো উত্তর দিয়েছেন, প্রশ্নের ফাঁকে টুকিটাকি গল্পও করেছেন – সব দিক মিলিয়ে চাকরি পাওয়ার আশা অনেকটাই পাকাপোক্ত হয়ে বসেছে আপনার মনে।

এমন সময় ইন্টারভিউয়ার করে বসলেন এমন একটি প্রশ্ন যার উত্তর কীভাবে দেবেন আপনার কোনো ধারণা নেই। আর এই প্রশ্নটা এমন যে এর উত্তর যদি প্রশ্নকর্তার ভালো না লাগে তাহলে আপনার চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা খুবই কমে যাবে। আমরা সবসময়ই বলে থাকি ইন্টারভিউয়ের আগে যতোটা প্রস্তুতি নেওয়া যায় ততো ভালো। তাহলে এরকম কঠিন এবং ব্যক্তিগত প্রশ্নের প্রস্তুতিই বা বাদ রাখবেন কেনো?

আপনার প্রস্তুতির সুবিধার্থেই আজকের আর্টিকেলে থাকছে তেমনই একটি প্রশ্নের বিশ্লেষণ – “আগের চাকরি ছেড়ে দিচ্ছেন কেনো?”

ইন্টারভিউয়ারের এই প্রশ্ন করার উদ্দেশ্যটা কী?

প্রশ্নের উত্তর মনমতো দিতে চাইলে প্রথমে এটা বোঝা খুব জরুরী যে প্রশ্নকর্তা কী ধরনের উত্তর আশা করছেন। এই প্রশ্নটি করার পেছনে ইন্টারভিউয়ারের প্রধান উদ্দেশ্য সম্ভবত ঝুঁকি নির্ধারণ করা। অর্থাৎ আপনাকে চাকরিতে নিয়োগ দিলে কয়েক দিন পরই চাকরি ছেড়ে আপনার অন্য কোম্পানিতে চলে যাওয়ার সম্ভাবনা কতোটুকু।

আগের চাকরিটা ছাড়ার পেছনে আপনার কারণটা কতোটুকু যৌক্তিক ছিল, কেমন পরিস্থিতিতে আপনি চাকরি ছেড়েছেন এবং কাজের প্রতি আপনি কতোটুকু নিবেদিত প্রশ্নকর্তা এই সবকিছুর ধারণা পেতে চান আপনার উত্তর থেকে। মোট কথা উত্তর যাই হোক, তা আপনার ব্যক্তিত্ব এবং পেশাদারিত্ব সম্পর্কে একটি ধারণা তৈরি করবে ইন্টারভিউয়ারদের মনে।

“আগের চাকরি ছেড়ে দিচ্ছেন কেনো?” -এর উত্তরের কিছু উদাহরণ

উন্নতির সুযোগ ছিল না

আমি ক্যারিয়ারে এগিয়ে যেতে এবং কাজের ক্ষেত্রে আরও বেশি দায়িত্ব নিতে চাচ্ছিলাম। কিন্তু আগের কোম্পানির টিমটি ছোট হওয়ার কারণে সেখানে চাকরিজীবীদের জন্য আমার কাঙ্ক্ষিত পর্যায়ে কাজ করার মতো সুযোগ নেই।

নতুন চ্যালেঞ্জের খোঁজে

আগের কোম্পানিতে পুরো পাঁচ বছর কাজ করার পর এখন আমার একটা নতুন চ্যালেঞ্জ দরকার। যেখানে আমি নতুন ধরনের কাজ করতে পারবো এবং ভিন্ন কিছু দক্ষতা অর্জন করতে পারবো। এই চাকরিতে অ্যাপ্লাই করার উদ্দেশ্যও তাই। আমি নতুন কিছু শিখতে চাই এবং এই পজিশনটি আমাকে যেমন আগের অভিজ্ঞতা ব্যবহারের সুযোগ দেবে, তেমনি নতুন কিছু বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করারও পথ তৈরি করবে।

ক্যারিয়ার পরিবর্তন

মাত্র কয়েক মাস আগে আমি বুঝতে পারি যে আমার প্রকৃত প্যাশন হচ্ছে লেখালেখি। আসলে অনেক আগে থেকেই আমার লিখতে ভালো লাগে, কিন্তু পড়াশোনা শেষে ক্যারিয়ার হিসেবে অন্য পেশা বেছে নিয়েছিলাম। এখন আমি লেখক হিসেবে পেশাজীবন শুরু করতে প্রস্তুত এবং আপনার কোম্পানিতে এই পদে কাজ করার ব্যাপারে আমি খুবই উৎসুক।

চাকরি চলে গেছে

দুর্ভাগ্যজনকভাবে, আমার আগের চাকরিটি চলে গেছে। আমার ধারণা তার মূল কারণ হচ্ছে চাকরিটা আমার জন্য সঠিক ছিল না এবং আমি উপযুক্ত স্কিলগুলো শিখতে পারি নি। আমার বস এবং আমি দুজনই মনে করি যে এখন আমার পেশা পরিবর্তনের সময় এসে গেছে। তাই পরবর্তী পজিশনে আমি আমার সর্বোচ্চ দক্ষতা ও চেষ্টা নিয়ে ঝাঁপিয়ে পরার অপেক্ষায় আছি।

ব্যক্তিগত কারণ

পরিবারকে সময় দেওয়ার জন্য আমি কিছুদিন কর্মজীবন থেকে বিরতি নিতে চেয়েছিলাম। আমার পারিবারিক পরিস্থিতি এখন আগের চেয়ে অনেক স্থিতিশীল এবং আমার মতে এখনই কর্মজীবনে ফেরত আসার উপযুক্ত সময়।

কীভাবে উত্তর দেবেন সে ব্যাপারে কিছু টিপস

আগের অংশে উল্লেখ করা উত্তরগুলো উদাহরণ মাত্র। এই উদাহরণ এখানে তুলে ধরার উদ্দেশ্য হচ্ছে কোন পরিস্থিতিতে আপনি কী উত্তর দিতে পারেন তার ব্যাপারে কিছু ধারণা দেওয়া। কিন্তু এরকম ব্যক্তিগত প্রশ্নের উত্তর আসলে ব্যক্তিভেদে আলাদাই হওয়া উচিত। তাই নিজের জন্য এই বিশেষ উত্তরটি কীভাবে সাজাবেন তা নিয়ে কিছু টিপস থাকছে এই অংশে।

ইতিবাচকভাবে উত্তর দিন

আপনি নতুন চাকরি খুঁজছেন তার একটি খুব সম্ভব কারণ হচ্ছে আগের কোম্পানি বা পজিশনে কোনো না কোনো অসুবিধা ছিল। সেই কারণ বা সমস্যাটা যতো ছোট বা বড়ই হোক না কেনো, তা নিয়ে নেতিবাচক কথা বলায় আপনাকে ভালো দেখাবে না। বরং আগের কোম্পানির্কে যতোটা সম্ভব ইতিবাচকভাবে উপস্থাপনের চেষ্টা করুন।

যে কোনো ইন্টারভিউয়ে কাউকে নিয়ে নেতিবাচক কথা বলা উচিত না কারণ প্রথমত, আপনি জানেন না ইন্টারভিউয়ারের সাথে তার কোনো সম্পর্ক বা পরিচয় আছে কিনা। এবং দ্বিতীয়ত, এতে বরং ইন্টারভিউয়ারের আপনাকে নেতিবাচক মানসিকতার অধিকারী হিসেবে ধরে নেওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। তাই আগের চাকরিদাতার খুঁত না ধরে এই পরিবর্তন থেকে আপনি ইতবাচক কী পাবেন তা নিয়ে কথা বলুন।

সততার সাথে উত্তর দিন

ইন্টারভিউয়ে কোনো পরিস্থিতিতেই মিথ্যা বলা শোভনীয় নয়। আপনার আগের চাকরি যাই থাকুক বা যেমনই থাকুক, মিথ্যা বলে তাকে অন্যরকমভাবে উপস্থাপন করার চেষ্টা সফল হওয়ার সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। তাই সততার সাথে এই পরিবর্তনের কারণ ব্যাখ্যা করা এবং চাকরিটা এখন আর আপনার জন্য উপযুক্ত নেই তা বুঝিয়ে বলাই ভালো।

আপনাকে হয়তো আরও তথ্য দেওয়ার জন্য চাপ দেওয়া হতে পারে। ইন্টারভিউয়ার এ ব্যাপারে আরও প্রশ্ন করতে পারেন। নেতিবাচক কোনো তথ্য জানানোর সময় আবেগান্বিত না হওয়ার চেষ্টা করুন। শান্তু থেকে ঠাণ্ডা মাথায় উত্তর দিন এবং কথোপকথন ইতিবাচক দিকে ঘুরিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করুন।

তথ্যনির্ভরভাবে উত্তর দিন

আগের চাকরি নিয়ে কথা বলার সময় যতোটা সম্ভব তথ্যনির্ভরভাবে বলাই ভালো। সেই সব তথ্য সম্পর্কে আপনার অনুভূতি প্রকাশ করতে গিয়ে এমন কিছু বলে ফেলতে পারেন যা আপনার বলা উচিত নয়। ইন্টারভিউয়ারকে প্রয়োজনের চেয়ে বেশি বিস্তারিত জানানো থেকেও বিরত থাকুন।

আত্মবিশ্বাসের সাথে উত্তর দিন

আগের চাকরি ছাড়ার পেছনে যদি আপনার কোনো যৌক্তিক কারণ থাকে, তাহলে এই প্রশ্নে ভয় পাওয়া বা অপরাধ বোধ করার কিছুই নেই। ক্যারিয়ারে একাধিক বার চাকরি পরিবর্তন বর্তমানে খুবই স্বাভাবিক একটি বিষয়। তাই উত্তর যাই হোক, আত্মবিশ্বাসের সাথে কথা বলুন এবং পরবর্তী প্রশ্নের দিকে এগিয়ে যান।

আপনি কি চাকরি পরিবর্তন করে নতুন ক্যারিয়ার শুরু করতে প্রস্তুত? চাকরি অ্যাপে জবসিকার অ্যাকাউন্ট খুলে নতুন চাকরির সন্ধানের পথে এগিয়ে যেতে পারেন আরও এক ধাপ। পরিবর্তনের এই সন্ধানের জন্য আপনাকে শুভকামনা!